You are here: Home / অনুভূতি / শেষ বিকেলের আকাশে মেঘ

শেষ বিকেলের আকাশে মেঘ

Sun Set and Villageকত শত টুকরো টুকরো গল্প ঝুলে আছে আমার বত্রিশ বছরের বয়সঘড়িতে। আর যেহেতু বর্তমান আমাকে কিছুতেই স্বস্তি দেয় না- তাই ফিরে ফিরে আমি সেইসব ঘটনার কাছেই চলে যাই, যা আমাকে এক নিবিড় আনন্দ দেয়। স্বস্তি দেয়। গৃহপালিত প্রাণিটি যেমন ভরপেট খেয়ে সারাদিন ধরে জাবর কাটে, আমিও তেমন স্মৃতির জাবর কাটি। এতে আমি আরাম বোধ করি। বসে বসে এক ধরনের দৃশ্যকল্প তৈরি করি। যে সমস্ত ঘটনা আমার জীবনেই ঘটে গেছে কিংবা ঘটতে পারতো কিংবা ঘটেনি, মোটকথা আমি সম্পূর্ণ এক পরাবাস্তব জগতে ঢুকে যাই যেখানে আমার কল্পনার রঙ খোলা হাওয়ার মতই স্বাধীন। বোশেখ মাসের ছড়ানো ধানের ডাঁটা ছুড়ে ছুড়ে মারছি কচি সকালের  গায়, আর রোদ চড়তে চড়তে ধানের আঁটি উঠে যাচ্ছে আমাদের টিনের চাল অবধি। আমার কচি কচি চোখ দিয়ে আবার যদি সেই সকাল দেখা যেত! আর যখন আমার চোখে কেবল রং লেগেছে, সবকিছুকেই বড় সবুজ দেখাচ্ছে, বাতাসেও এক ধরনের গন্ধ পাচ্ছি- আমি তখন মেট্রিক পড়ুয়া- প্রাইভেট পড়তে গিয়ে সেই স্কুল পড়ুয়া মেয়েটিকে প্রথম দিন দেখেই সিদ্ধান্ত নিয়ে নিয়েছিলাম, এখন থেকে এই মেয়েটিকে নিয়েই সমুদ্র পাড়ের দারুচিনি দ্বীপের ছায়াঘন জঙ্গলে ঘুরে বেড়াব। আর শেষ বিকেলের আকাশে ধবল মেঘের ভিতর এই মেয়েটিরই ছবি আঁকব। সেইসব তরুণী বিকেল এখনও যেন পশ্চিম পাড়ের ধানি জমির মাথার উপর দিয়ে ভেসে বেড়াচ্ছে। আমি গিয়েই হাত বাড়িয়ে ছুঁতে পারব। আর সেই সন্ধ্যাটি-বাড়ির পাশের রাস্তা দিয়ে যেতে যেতে যে সন্ধ্যায় হঠাৎই গাঁদা ফুলের গন্ধ জড়ানো স্কুল পড়ুয়ার এক টুকরো হাসি উড়ে এলো। তার ঘি রঙা বাহু আর হলুদাভ কচি মুখ সেই সন্ধ্যাকে আরো উজ্জ্বলতর করেছিল। সময় পেলেই আমি এই সন্ধ্যাটির ভেতরে ঢুকে পড়ি। আর কোমল-নরম তুলোর ভেতরে ডুবতে থাকা এক অনুভব উপলব্ধি করি। মোটকথা আমি প্রায়ই পলায়নপর হই বর্তমান থেকে। কেননা আজকাল আশ-পাশে যে সমস্ত শব্দ ছোড়াছুড়ি হয়, যে সমস্ত দৃশ্য ভেসে ভেসে বেড়ায় আমি তাতে বড়ই বিব্রত বোধ করি। আমার আঁশফাঁস লাগে। আর আমি বড় বেশি একা হয়ে উঠি। আমি যেন কারও সাথেই ঠিকঠাক খাপ খাওয়াতে পারি না। চারিদিকের চালাক-চতুর আর বিষয়-বুদ্ধিসম্পন্ন লোকেদের ভিড়ে নিজেকে বড় বোকা বোকা লাগে।

Masud Sumonঅনুভূতি লেখক: মাসুদ সুমন। কবি, লেখক ও সাংস্কৃতিক কর্মী, নয়াচর, মাদারীপুর।
রচনাকাল: ২৬ এপ্রিল ২০১২। প্রথম প্রকাশ: দৈনিক বিশ্লেষণ, অনুভূতি প্রকাশনার বিশেষ পাতা ৫ আগস্ট ২০১২ইং।
facebook.com/masud.sumon.18


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top