You are here: Home / অনুভূতি / আলো আসবে না এখানে

আলো আসবে না এখানে

Dhaka Buildingবসতবাড়ির জ্যামে দেখা যায় না ঢাকার আকাশ। এ তো পুরোনো গল্প এক। শুক্রবার জুমার নামাজ শেষে বাসায় ফিরছি। শীতের ছোট্ট দুপুরের মিষ্টিরোদ আমাকে টেনে ধরলো। রাস্তার পাশে দাঁড়ালাম চা হাতে। চোখে পড়লো উঁচু দালানের বেলকোনিতে ভদ্রলোকের সানবাথের সাথে পেপার পড়ার দৃশ্য। ভালো লাগলো। চোখ ঘুরাতেই দৃষ্টি পড়লো দালানের পেছনের দিকটাতে। চা নিয়েই এগিয়ে গেলাম খানিকটা। দেখলাম শীতে জড়সড় হয়ে আছে এক বৃদ্ধা। কোলে ৮ মাসের শিশু। মনে মনে ওকে ‘শীত’ বলে ডাকতে ইচ্ছে হলো। কোন রকম চটের বস্তা আর প্লাস্টিকের আবরণে জীবন চালিয়ে নেয়ার চেষ্টা তাদের। দেখে খুব খারপ লাগলো। ওদের ভীষণ রোদের উষ্ণতা প্রয়োজন। কিন্তু উঁচু দেয়ালের মাথায় যে সূর্য আটকে আছে। বাবুদের সানবাথের জন্য সূর্য, মানুষের বাঁচার জন্য নয়। বাবুদের আছে তাই আরো থাকবে। ‘শীত’দের কিছু নেই, তাই সূর্যও নেই। দোষ কার? সূর্যের নাকি বাবুদের? দোষ আমাদের নিয়মের আমাদের সিস্টেমের। সরকারতো না করার ভেতরেও সাধারণ জনগণের জন্য কিছু করছে। কিন্তু সে সুবিধা আমাদের পর্যন্ত আসছে না কেন? আসছে না কারণ সরকার আর সাধারণ জনগণের মাঝে অব্যবস্থাপনা আর দুর্নীতির দেয়াল তৈরি হয়েছে। আলো আসবে কি করে! আমরা তাই ‘শীত’ হয়ে আছি। আমরা চটের বস্তা আর প্লাস্টিকের আবরণে জীবন চালানোকে ভাগ্য বলে মেনে নিয়েছি। ভাগ্য তাই দুর্ভাগ্য হয়েই থাকবে যতদিন পর্যন্ত রাঘব-বোয়ালসহ সরকার যন্ত্রের কর্তারা তাদের চরিত্রে পরিবর্তন না আনছে।

Istiaque Ahmedঅনুভূতি লেখক: ইসতিয়াক আহমেদ শাওন, শিক্ষার্থী, বিবিএ, এআইইউবি ইউনিভার্সিটি।
রচনাকাল: ডিসেম্বর ২০১১ইং, প্রথম প্রকাশ: দৈনিক বিশ্লেষণ, অনুভূতি প্রকাশনার বিশেষ পাতা-২০১২ইং।
facebook.com/istiaque.shawon


Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

Scroll To Top